তিনি যে নির্দোষ সেটা তাকেই প্রমাণ করতে হবে

Published: 12. Sep. 2016 | Monday

সুজাত মনসুর : ইংরেজি জনপ্রিয় একটি কার্টুন ছবি দেখেননি, এমন লোক হয়তো কমই পাওয়া যাবে। বিশেষ করে শিশুদের কাছে এই ছবিটি অতি প্রিয়। শুধু শিশু বলি কেনো, অনেক বয়স্ক লোকও তা পছন্দ করেন এবং আনন্দ পান। কার্টুন ছবিটির নাম `টম এন্ড জেরি`। ছবিটির বিষয়বস্তু হলো টম নামক বিড়ালটি জেরি নামক ইঁদুরটিকে ধরার জন্য নানা ধরনের কৌশল অবলম্ব করে।
উদ্দেশ্য একটাই, ভক্ষণ করা; কিন্তু জেরি টমের চেয়ে আরো এক কাঠি উপরে, সে কোন অবস্থায়ই যাতে টমের শিকারে পরিণত হতে না হয় সেজন্য আরো বেশি কৌশলী অবস্থান গ্রহণ করে।
আমাদের দেশেও এখন একই ধরনের একটি খেলা চলছে বলে মনে হয়। আর সে খেলাটি চলছে খালেদা জিয়া ও দুদকের মধ্যে। মধ্যখানে বিচারিক আদালতের বিচারক আছেন মহাফাঁপড়ে। তাকে আইনের প্রতি শতভাগ অনুগত থাকতে হচ্ছে আবার একজন ভিভিআইপির প্রতিও সম্মান প্রদর্শন করতে হচ্ছে।
থিম বা বিষয়বস্তুর দিক থেকে বিচার করলে তা হয়তো সঠিক নয়। তবে কৌশলের দিক থেকে খালেদা জিয়া ও দুদকের ভূমিকা অনেকটা টম ও জেরির মতো। তাহলে বিষয়টি খোলাসা করেই বলি। বিএনপি চেয়ারপার্সন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বিগত সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় বেশকিছু মামলা দায়ের করা হয়। যার মধ্যে অধিকাংশই দুর্নীতির মামলা। এই মামলাগুলোর বাদি হলো দুর্নীতি দমন কমিশন-সংক্ষেপে দুদক। এই মামলাগুলোর মধ্যে জিয়া অরফারেন্স ও জিয়া চ্যারিটিব্যল দুর্নীতি মামলায় বর্তমানে স্বাক্ষ্য গ্রহণ চলছে। এই মামলাগুলোতে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। যদিও এ লেখাটি যখন লিখছি তখনো বাস্তবায়ন হয়নি, খলেদা জিয়া বহাল তবিয়তে তার গুলশানের অফিস-কাম-বাসভবনে বসে মানুষ পুড়িয়ে মারার হুকুম জারি করেই যাচ্ছেন।
আর বড়পুকুরিয়া দুর্নীতির মামলা বিচারিক আদালতে চলতে পারে কি না সে নিয়ে খালেদা জিয়ার দায়ের করা মামলাটি মাননীয় হাইকোর্টের একটি বেঞ্চে রায়ের জন্য অপেক্ষমান। যদিও হাইকোর্টের এই বেঞ্চ সহ বিচারিক আদালতের উপর খালেদা জিয়া ইতোমধ্যেই অনাস্থা জানিয়ে আবেদন করেছেন, সেগুলোও শুনানির অপেক্ষায়।
তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় মামলাগুলো দায়ের করা হলেও চার্জসিট দেয়া হয় বিগত মহাজোট সরকারের আমলে। মামলা দায়ের ও চার্জসিট দাখিল থেকে শুরু করে স্বাক্ষ্যগ্রহণ পর্যন্ত আসতেই পেরিয়ে গেছে দীর্ঘ কয়েক বছর। মামলাটি চলছে একটি বিশেষ আদালতে। বিশেষ আদালত গঠন করার উদ্দেশৎ হলো, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মামলার নিষ্পত্তি করা, যদিও আইনে কোন বাঁধাধরা সময় বেঁধে দেয়া নেই, যেটা আছে দ্রুত বিচার আইনের ক্ষেত্রে। তবুও যে কোন মামলাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নিষ্পত্তি হওয়া উত্তম, অবশ্যই সকল ধরনের স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতা বজায় রেখে। কেননা প্রলম্বিত বিচারের ক্ষেত্রে অনেকাংশেই ন্যায় বিচার নিশ্চিত হয় না। তাই বলা হয়ে থাকে, `জাস্টিস ডিলেইড জাস্টিস ডিনাইড`। আর এই বিচার বিলম্বিত হবার মূল কারণ হলো নানা অজুহাতে খালেদা জিয়ার আদালতে উপস্থিত না হওয়া, সময় চেয়ে আবেদন করা, বিচারিক আদালতের প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন বা মামলা বাতিল চেয়ে হাইকোর্টের শরণাপন্ন হওয়া।
চার্জসিট দাখিল থেকে শুরু করে স্বাক্ষ্যগ্রহণ পর্যন্ত গত প্রায় তিন বছরে তেষট্টিবার মামলার তারিখ পড়েছে এবং খালেদা জিয়া আদালতে হাজির হয়েছেন মাত্র সাতবার। প্রতিবারই কোন না কোন অজুহাত দেখিয়ে পরবর্তী তারিখে আদালতে হাজির হবার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার আইনজীবীরা সময়ের আবেদন করেছেন। দুদকের আইনজীবীর আপত্তি উপেক্ষা করে বিজ্ঞ বিচারিক আদালত তাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সময় মঞ্জুর করেছেন। বিজ্ঞ বিচারিক আদালতের নজিরবিহীনভাবে একজন ফৌজাদারি মামলার আসামিকে বার বার সময় মঞ্জুর করার হয়তো একটাই কারণ, এই মামলাগুলোর অন্যতম আসামি খালেদা জিয়া সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধীদলীয় নেতা, অর্থাৎ ভিভিআইপি। এমনকি আদালত কর্তৃক গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে পরোয়ানা পৌঁছে না এবং এ ব্যাপারে আদালতও কিছু বলেন না। একজন সাধারণ মানুষ হলে বা শুধু ভিআইপি হলে এমনটি হতো না। দুদক বারবারই চেষ্টা করছে, আবেদন জানাচ্ছে খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করে বা অনুপস্থিতিতে বিচার কার্যক্রম সম্পন্ন করে মামালাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য; কিন্তু আদালতের সিদ্বান্তের বাইরে কারো যাবার সুযোগ নেই। অন্যদিকে খালেদা জিয়া তার ভিভিআইপি মর্যাদাটি কাজে লাগিয়েই বিচার কাজ বিলম্বিত করছেন।
খালেদা জিয়ার আদালতে হাজির না হবার অন্যতম অজুহাত হলো, ব্যক্তিগত নিরাপত্তা। যখনই মামলার শুনানির তারিখ পড়ে, তখনই তার আইনজীবীরা ব্যক্তিগত নিরাপত্তার কথা উল্লেখ করে সময়ের আবেদন করেন, কারণ দেশে কোন না কোন রাজনৈতিক কর্মসূচি চলছে। তন্মধ্যে অতীতে ছিলো হরতাল, বর্তমানে চলছে হরতাল-অবরোধ সমান তালে। আর অতীতে বা বর্তমানে এ ধরনের কর্মসূচির আহ্বানকারী হয় বিশ দলীয় জোট বা বিএনপি অথবা তাদের মিত্র যুদ্ধাপরাধীদের দল জামায়াতে ইসলামী। অতীতে প্রায় সময়ই দেখা যেতো, যেদিনই খালেদা জিয়ার মামলায় হাজিরার তারিখ পড়তো সেদিনই তারা হরতাল আহ্বান করে বসে আছে। আদালতের কড়া আদেশ হোক বা লোক দেখানো নাটকই হোক কয়েক মাস আগে খালেদা জিয়া আদালতে যাবার সিদ্ধান্ত নিলেন; কিন্তু পাশাপাশি ছাত্রদল ও যুবদলের কয়েক হাজার নেতাকর্মীকে পাঠিয়ে দেয়া হলো আদালতের গমন পথে অবরোধ করার জন্য। ফলে যা হবার তাই হলো। পুলিশ, অবরোধকারী ও সরকার সমর্থক কিছু অতি উৎসাহী কর্মীর মধ্যে শুরু হয়ে গেলো ত্রিমুখী লড়াই। খালেদা জিয়া ও বিএনপি তাদের চক অনুযায়ী তাদের এজেন্ডা বাস্তবায়নে আপাততঃ সক্ষম হলো। অর্থাৎ আদালতে হাজিরা দেওয়া যে নিরাপদ নয় তাই তারা প্রমাণ করার চেষ্টা করলো, যা নিতান্তই খোড়া যুক্তি, বাংলার মানুষের বুঝতে না পারার কোন কারণ নেই।
নিজেরা হরতাল বা অবরোধ ডেকে আবার নিজেরাই নিরাপত্তার অজুহাতে মাসের পর মাস আদালতে হাজিরা থেকে অনুপস্থিত থাকার প্রবণতা কি একজন দায়িত্বশীল নাগরিকের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবার নমুনা? অথচ আমাদের তথাকথিত সুশীল বা নাগরিক সমাজ এবং কিছু আইনি পন্ডিত রাজনীতিক বা যে সব সাংবাদিক ও কলাম লেখক আছেন, যারা প্রায়ই আইন ও আদালতের ভূমিকা নিয়ে কলাম লেখেন এবং সুশাসন ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য মুখে ফেনা তুলে ফেলছেন খালেদা জিয়ার আইন ও আদালতের প্রতি যে অবজ্ঞার ভাব সে সম্পর্কে কিছুই বলছেন না। অন্য আরো বিষয়ের মতো এ ব্যাপারেও তাদের ভূমিকা রহস্যজনক।
আদালতে হাজিরা থেকে বিরত থাকা বা বিচার প্রলম্বিত করার দ্বিতীয় কারণ হিসেবে যে বিষয়টি সামনে নিয়ে আসা হয়, তাহলো বিচারিক আদালতের প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন। বর্তমান মাননীয় বিচারক আবু আহমেদ জমাদারের আগে যিনি দায়িত্ব পালন করছিলেন, তার প্রতি অনাস্থা জানানোর কারণে হোক বা অন্যকোন কারণে হোক আইন মন্ত্রণালয় তার পরিবর্তে বর্তমান বিচারককে নিয়োগ দেয়; কিন্তু এ বিচারকের প্রতিও দেখা যায় তার অনাস্থা রয়েছে। আবার দেখলাম হাইকোটের যে বেঞ্চে বড়পুকুরিয়া দুর্নীতির মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান রয়েছে, সেই বেঞ্চের মাননীয় বিচারকদের উপরও খালেদা জিয়া অনাস্থা দিয়েছেন।
এই যে আস্থাহীনতা তা কিন্তু খালেদা জিয়ার কাছে নতুন বা অভিনব কিছু নয়। তিনি বরাবরই আস্থাহীনতায় ভুগেন। যেমন মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে কার স্বামী জিয়াউর রহমান যখন তাকে ভারতে নিয়ে যাবার জন্য লোক পাঠিয়েছিলেন, সেদিনও কিন্তু খালেদা জিয়া তার স্বামীর উপর আস্থা রেখে ভারতে চলে যাননি বরং পাকিস্তানি জেনারেলদের উপর শতভাগ আস্থা রেখে তাদের সাথে অবস্থান করতেই স্বাচ্ছন্দবোধ করেন। আর এখন তিনি বিএনপির নেতাকর্মীদের উপর কোন ধরনের আস্থা না রেখে তার পুত্র তারেক ও জামায়াতিদের উপর আস্থা স্থাপন করে মানুষকে পুড়িয়ে মারার আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন। তাই যারা খালেদা জিয়া `আপোসহীন` নেত্রী বলে সম্বোধন করেন তাদের প্রতি সবিনয় অনুরোধ আর এই শব্দটির অপপ্রয়োগ না করে তাকে `আস্থাহীন নেত্রী` বলে ডাকলেই তা সমীচিন হবে।
আরেকটি কথা, বারবার বিচারকের প্রতি অনাস্থা না দিয়ে বলে দিলেই হয় কোন বিচারককে তার পছন্দ ও আস্থাভাজন বলে মেনে হয়। যেভাবে ২০০৭ সালে তার আস্থাভাজন মাহমুদ হাসানকে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান করে নির্বাচন করতে চেয়েছিলেন। তা না করতে পেরে শেষ চেষ্টা হিসেবে ইয়াজ উদ্দিনকে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের শিখণ্ডী করেও বিফল হয়েছেন।
মামলা থেকে রেহাই বা মামলার কার্যক্রমকে বিলম্বিত করে কোন প্রকারে যদি বর্তমান সরকারের মেয়াদকাল অতিক্রম করা যায় সে চেষ্টা থেকে প্রায়ই দেখা যায়, তিনি মামলা বাতিলের আবেদন করেছেন বা করছেন। যুক্তি হিসেবে তার আইনজীবীরা যা বলেন, তাহলো খালেদা জিয়া ও তার পুত্রের বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলাগুলোর কোন ম্যারিট নেই বা সত্য নয়, সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত। এছাড়া তারা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী সহ আওয়ামী লীগ নেতাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলাগুলো প্রত্যাহার করে নেবার উদাহরণ তুলে ধরেন।
বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর মামলাগুলো কিসের ভিত্তিতে প্রত্যাহার করা হয়েছে তা সরকারই বলতে পারবে। তবে দুদক বলছে, তারা কোন মামলা প্রত্যাহার করেনি। এছাড়া বিএনপি নেত্রীসহ তার আইনজীবী আর দলীয় নেতারাতো ঘোষণি দিয়েই রেখেছেন, তারা ক্ষমতায় এলে সেগুলো পুনর্জ্জীবিত করে বিচার করবেন। সুতরাং সেদিনের অপেক্ষায় থেকে এখন কোন ধরনের ধানাইপানাই না করে নিজেদের মামলাগুলো আইনের মাধ্যমেই নিষ্পত্তি করা সমীচিন নয় কি?
টম এন্ড জেরি কার্টুনের উদাহরণ টেনে লেখাটি শুরু করেছি, বিষয়টি খানিকটা রসালো করে উপস্থাপন করার জন্য; কিন্তু খালেদা জিয়া মামলাগুলোর বিচার কাজ প্রলম্বিত করার জন্য যে কৌশলের আশ্রয় নিচ্ছেন এবং দুদক যেভাবে তাকে আদালতে হাজির করে আইনের শাসন নিশ্চিত করে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তা নিষ্পত্তির জন্য চেষ্টা করছে তা বোঝানোর জন্য এই উদাহরণটি আমার কাছে উপযুক্ত মনে হয়েছে। তবে কৌশলের দিক থেকে অনেকটা সঠিক হলেও, উদ্দেশ্যের দিক থেকে ভিন্নতা রয়েছে দুদকের; কিন্তু খালেদা জিয়ার উদ্দেশ্য ও কৌশল দু`টোই নিজেকে যেভাবেই হোক রক্ষা করা। যদিও সবকিছুর পেছনেই আইনের শাসন না মেনে চলার প্রবণতাই লক্ষ্যণীয়।
কিন্তু এসব করে খালেদা জিয়া পার পাবেন কি বা আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হবে কি। আইনের চোখে সবাই সমান, এটাই বাস্তবতা। সুতরাং খালেদা জিয়া যদি মনে করে থাকেন, তিনি দুর্নীতি করেননি, তাহলে তাকে আইন মেনেই তা প্রমাণর চেষ্টা করতে হবে তথ্য-উপাত্ত দিয়ে। কুটকৌশল অবলম্বন করে বা সরকার তাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে হেয়-প্রতিপন্ন বা অন্যায়ভাবে সাজা দিতে চাচ্ছে-একথা বলে জনগণকে বোকা বানাতে পারবেন না। আর যদি বিচারিক আদালতে তার সাজা হয়েও যায়, তাহলে উচ্চতর আদালততো রযেছেই। তিনি সেখানে আপিল করতে পারবেন। তাই কোন ধরনের কুটকৌশল অবলম্বন না করে আগামীতে যে তারিখ রয়েছে সেদিন আদালতে হাজির হয়ে আইনের প্রতি তিনি যে শ্রদ্ধাশীল তা প্রমাণের চেষ্টা করবেন। জাতি চাই আশা করে।
আরেকটি কথা, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আদালত গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির পরও তাকে গ্রেফতার না করা সরকারের দুর্বলতা নয়, একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রীর প্রতি সম্মান প্রদর্শন বলেই মনে হয়। দেশের জনগণ আশা করে, তিনি সে সম্মানটুকু রাখার চেষ্টা করবেন, গ্রেফতারি পরোয়ানা মেনে আদালতে আত্মসমর্পণ করবেন, যদিও এ আশা দুরাশায় পরিহত হবার সম্ভাবনাই শতভাগ।

সুজাত মনসুর : যুক্তরাজ্র প্রবাসী সাবেক ছাত্রনেতা ও কলাম লেখক

Share Button
November 2018
M T W T F S S
« Oct    
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
2627282930  

দেশবাংলা

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com