জানতাম না এ ফুটেজটিই হবে এক ঐতিহাসিক দলিল : আল আজাদ

Published: 05. Sep. 2017 | Tuesday

বাংলাদেশের রাজনীতি আর অর্থনীতির ইতিহাসের এক প্রবাদপুরুষ সাইফুর রহমান অনেকদিন পর সিলেট সফর করছেন, হোক না এ সফর শুধু হযরত শাহজালাল (র) ও হযরত শাহপরান (র)-এর মাজার জিয়ারতের মধ্যে সীমাবদ্ধ, এ নিয়ে কোন খবর পাঠাবো না-তা হতে পারেনা। সম্ভব হলে তাৎক্ষণিক ছোটখাটো একটি সাক্ষাতকার। তবে তা হতে হবে অবশ্যই রাজনৈতিক বক্তব্য প্রধান। কেননা বহুদিন হয়ে গেছে তার মুখ থেকে তেমন কোন রাজনৈতিক বক্তব্য শোনা হয়নি। এছাড়া তার মতো একজন জাতীয় নেতার মুখ থেকে মানুষ রাজনৈতিক বিষয়াদিই জানতে চায়। তাই আগেভাগেই দুটি প্রশ্ন ঠিক করে নিলাম। অবশ্য কিছুটা সন্দিহান ছিলাম, আদৌ কথা বলবেন কি না। কারণ তিনি অসুস্থ। ইদানিং রাজনীতি থেকে খানিকটা দূরেও বসবাস করছেন বলেই মনে হচ্ছে।
তবু প্রস্তুতি নিয়ে প্রথমেই ফোন করলাম মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি আরিফুল হক চৌধুরীকে; কিন্তু তার ফোন বন্ধ। ফোন করলাম মহানগর বিএনপির তৎকালীন আহ্বায়ক ডা শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরীকে। পেয়ে গেলাম খুব সহজেই। আমার জিজ্ঞাসার উত্তরে জানালেন, সাইফুর রহমান বন্দর বাজার জামে মসজিদে জুমার নামাজ পড়েছেন। এখন যাবেন হযরত শাহজালাল (র)-এর দরগায়। সেখান থেকে হযরত শাহপরান (র)-এর দরগায় যাবার কথা রয়েছে। অন্যকোন কর্মসূচি নেই।
চ্যানেল আইর চিত্রগ্রাহক সোহাগ আহমেদ বাংলাদেশের রাজনীতি আর অর্থনীতির ইতিহাসের আরেক প্রবাদপুরুষ বর্তমান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সিলেট অঞ্চলের কাস্টমস, এক্সাইজ, ভ্যাট ও আয়কর কর্মকর্তাদের সাথের বৈঠকের ফুটেজ ক্যাপসার করে দিয়ে চলে গেছে। তার বাসা রাজারগলি­। দরগায় চলে যেতে বললাম তাকে। এর আগে ফোন করলাম একুশে টেলিভিশনের সিলেট প্রতিনিধি ওয়েছ খসরুকে। আমার প্রশ্নের উত্তরে ওয়েছ জানালো, তাদের চিত্রগ্রাহক এফ এ মুন্না বন্দর বাজার জামে মসজিদে রয়েছে। এরপর এফ এ মুন্নাকে ফোন করে বললাম সাইফুর রহমানের সাথে থাকার জন্যে। সে সাথে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করলো।
আমি চ্যানেল আইর মাইক্রোফোনটি হাতে নিয়ে দ্রুত নিচে নেমে এলাম। রিক্সাও পেয়ে গেলাম সাথে সাথে। অতঃপর সোজা হযরত শাহজালাল (র)-এর দরগায়। পশ্চিম দিক দিয়ে ঢুকলাম। ততক্ষণে সাইফুর রহমান দলবল নিয়ে সেখানে পৌঁছে গেছেন।
আমি দরগায় পৌঁছে দেখি, তিনি দরগার সামনের খোলা জায়গায় দাঁড়িয়ে হযরত শাহজালাল (র)-এর মাজার জিয়ারত করছেন। প্রথমেই দেখা হলো দৈনিক জালালাবাদের স্টাফ রিপোর্টার মো ফয়ছল আলমের সাথে। আরেকটু এগুতেই পেলাম চ্যানেল এসের চিত্রগ্রাহক নিরানন্দ পালকে। তাকে বললাম, ‘মুন্নাকে বলো, আমি এসেছি’; কিন্তু সোহাগ আহমদ তখনো পৌঁছেনি। তাই তাকে বারবার ফোন করতে থাকলাম একপাশে দাঁড়িয়ে। পাশে দৈনিক সিলেটের ডাকের স্টাফ রিপোর্টার কাউসার চৌধুরী। তার নিকট থেকে বন্দর বাজার জামে মসজিদে কি কি হয়েছে তা জেনে নিচ্ছিলাম।
হঠাৎ চেয়ে দেখি, সাইফুর রহমান দোয়া সেরে কথা বলতে শুরু করে দিয়েছেন। অমনি একরকম দৌঁড়েই এগিয়ে গেলাম। সামনের দিকে বাড়িয়ে দিলাম মাইক্রোফোন। তার ডান পাশে দাঁড়ানো মহানগর বিএনপি নেতা ও সিটি কাউন্সিলর রেজাউল হাসান কয়েস লোদীর হাতে বাংলা ভিশনের মাউক্রোফোন। বাঁ পাশে আরিফুল হক চৌধুরী ও জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আবুল কাহের শামীমসহ অন্যরা। সিলেটবাসীকে আসন্ন ইদুল ফিতরের শুভেচ্ছা দিচ্ছিলেন সাইফুর রহমান। আমি খুঁজছিলাম ফাঁক, যাতে মাথার মধ্যে যে দুটি প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সেগুলো জিজ্ঞেস করতে পারি।
অনেক কথা বলে একটু থামতেই সুযোগটি নিয়ে নিলাম। জানতে চাইলাম, দেশের অবস্থা এখন কেমন। একটু হেসে বললেন, ‘সাংবাদিকরাতো অভিজ্ঞ মানুষ। সুতরাং দেশের বর্তমান অবস্থাতো আপনারাই ভাল বলতে পারবেন।’
বিনীতভাবে বললাম, ‘স্যার, আপনার অভিজ্ঞতা অনেক অনেক বেশি। সুতরাং আপনার নিকট থেকেই জানতে চাই।’
না, নিরাশ করলেন না। দেশের বর্তমান অবস্থার একটি ছোট্ট অথচ তাৎপর্যপূর্ণ মূল্যায়ন করলেন।
প্রশ্ন করলাম, তার নিজের দল বিএনপির এ মুহুর্তের করণীয় কি; কিন্তু না, উত্তর দিলেন না। কেন জানি এড়িয়ে গেলেন বিষয়টি। এর বদলে আশা প্রকাশ করলেন, দীর্ঘদিন পর ক্ষমতাসীন বর্তমান সরকারে যারা আছেন তারা নিজেদের মধ্যকার কামড়াকামড়ি শেষ করে দেশের জন্যে কাজ করতে সচেষ্ট হবেন।
আমার কাজ হয়ে গেছে। তাই সালাম দিয়ে বিদায় নিলাম; কিন্তু বেশি দূর গেলাম না। একপাশে দাঁড়িয়ে তাকে দেখতে লাগলাম। মন বলছিল, আর হয়তো দেখা হবেনা। তাই বারবার তার দিকে তাকাচ্ছিলাম। চমৎকার লাগছিল। প্রাণ খুলে কথা বলছিলেন। মনে হলো, আগের চেয়ে বেশ ভাল আছেন। তবে মুটিয়ে গেছেন কিছুটা। একা একা হাঁটার চেষ্টা করছিলেন; কিন্তু নেতৃবৃন্দ তাকে একা হাঁটতে না দিয়ে ধরে ধরে গাড়ির দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন।
গাড়িতে ঢুকবেন। এমন সময় কে যেন একটু দূর থেকে সালাম দিলেন। অমনি দাঁড়িয়ে গেলেন। পাশ ফিরে তাকিয়ে দেখতে চেষ্টা করলেন সালাম প্রদানকারীকে। জানিনা দেখতে পেয়েছিলেন কি না। এরপর সন্তানতুল্য রাজনৈতিক অনুসারীদের কাঁধে ভর দিয়ে গাড়ির ভিতর প্রবেশ করে দৃষ্টির আড়ালে চলে গেলেন।
সোহাগ এক ফাঁকে চলে এসেছিল। তাকে ও মুন্নাকে নিয়ে দ্রুত চলে এলাম চ্যানেল আই কার্যালয়ে। তাদের ক্যামেরায় ধারণ করা চিত্র মিলিয়ে তৈরি করলাম ৪৫ সেকেন্ডের একটি ফুটেজ। অন্যসব ফুটেজের মতোই পাঠিয়ে দিলাম ঢাকায়; কিন্তু তখনো জানতাম না, এ ফুটজেটিই ২৪ ঘণ্টার মাথায় হয়ে উঠবে একটি ঐতিহাসিক দলিল। শুক্রবার, ৪ সেপ্টেম্বর ২০০৯ বেলা ৩টার দিকে হয়রত শাহজালাল (র)-এর দরগা প্রাঙ্গণে দেয়া এই সাক্ষাতকারটি হবে কীর্তিমান পুরুষ সাইফুর রহমানের দীর্ঘ বর্ণাঢ্য জীবনের শেষ সাক্ষাতকার, যা ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার একমাত্র সাংবাদিক হিসেবে গ্রহণ করার সুযোগ আমার হয়েছিল। আমি এ জন্যে তার কাছে চিরঋণী হয়ে রইলাম। এর ঋণতো কোনদিন শোধ করা যাবেনা।

Share Button
August 2018
M T W T F S S
« Jul    
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  

দেশবাংলা

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com